চীন তালেবানকে আফগানিস্তানের ভবিষ্যত শাসক হিসাবে বিবেচনা করছে - lokkotha.com- দৈনিক লোককথা
ঢাকাবৃহস্পতিবার , ২৯ জুলাই ২০২১
  1. আন্তর্জাতিক
  2. ইসলাম
  3. কবিতা
  4. করোনা আপডেট
  5. খবর
  6. চাকরি
  7. পড়ালেখা
  8. প্রবাসের খবর
  9. বিনোদন
  10. মতামত
  11. রাজনীতি
  12. লাইফ স্টাইল
  13. শিক্ষা
  14. সম্পাদকীয় কলাম

চীন তালেবানকে আফগানিস্তানের ভবিষ্যত শাসক হিসাবে বিবেচনা করছে

প্রতিবেদক
Lokkotha(লোককথা)
জুলাই ২৯, ২০২১ ২:৫৪ অপরাহ্ণ

Spread the love

চীন তালেবানকে আফগানিস্তানের ভবিষ্যত শাসক হিসাবে বিবেচনা করে

কান্দাহারের একটি বাজারের এক দোকানদার। ছবি: বিবিসি

তালেবানদের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ও কাতারে তালেবান আন্দোলনের রাজনৈতিক শাখার প্রধান মোল্লা আবদুল গনি বারাদার বুধবার চীন সফর করেছেন। সেখানে তিয়ানজিনে তিনি চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ইয়ের সাথে দেখা করেন।

বিবিসি জানিয়েছে, চীন কিছুদিন ধরেই পাকিস্তানের মাধ্যমে তালেবানদের সাথে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ বজায় রেখেছে। তবে এই প্রথম এই জাতীয় মাপের একজন তালেবান নেতা চীন সফর করেছেন।

তালেবান নেতার সফরের চার দিন আগে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশি চীন সফর করেছেন। চেংডুতে তিনি চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাত করেছেন।

তারপরে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এক বিবৃতিতে বলেছিলেন যে আফগানিস্তানের যে কোনও অস্থিতিশীলতার প্রত্যক্ষ প্রভাব পড়শি প্রতিবেশী চীন ও পাকিস্তানের উপর পড়বে। ফলস্বরূপ, দু’দেশের মধ্যে সহযোগিতা বাড়ানো অত্যন্ত জরুরি।

রাষ্ট্রপতি জো বাইডেন পরবর্তী মাসের (আগস্ট) মধ্যে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণা দেওয়ার পর, প্রতিবেশী সমস্ত দেশ আফগানিস্তান সম্পর্কে অনিশ্চয়তার মুখোমুখি হচ্ছে। প্রত্যেকে এখন তাদের নিজস্ব স্বার্থ রক্ষার চেষ্টা করছে।

তবে সম্ভবত চীন সবচেয়ে সক্রিয় হয়ে উঠেছে।

অনেক পর্যবেক্ষক বলছেন যে মার্কিন চলে যাওয়ার পরে চীন আফগানিস্তানকে বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ (বিআরআই) প্রকল্পে অন্তর্ভুক্ত করার দুর্দান্ত সুযোগ পেয়েছিল। একই সাথে চীন আফগানিস্তানের খনিজ সম্পদের জন্য।

যুক্তরাষ্ট্রের থিঙ্ক-ট্যাঙ্ক, আরএএনডি কর্পোরেশনের প্রতিরক্ষা বিশ্লেষক ডেরেক গ্রসম্যান একটি বিশ্লেষণে লিখেছেন যে চীন তালেবানকে আফগানিস্তানের ভবিষ্যতের শাসক হিসাবে দেখা শুরু করেছে।

এ প্রসঙ্গে চীনের মালয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কুয়ালালামপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. সৈয়দ মাহমুদ আলী বলেছিলেন যে কেবল চীন নয়, বিশ্বজুড়েও নিশ্চিত যে আফগানিস্তানে তালেবানরা ক্ষমতা গ্রহণ করবে বা অন্তত ক্ষমতার বড় অংশীদার হবে।

তিনি বলেছিলেন যে আমেরিকা নিজেই তা মেনে নিয়েছিল। তালেবানদের সাথে আলোচনা শুরু করার জন্য কয়েক বছর আগে খলিলজাদকে দোহায় প্রেরণ করেছিল যুক্তরাষ্ট্র। বিশ বছর যুদ্ধের পরে আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র বুঝতে পেরেছিল যে তালেবানরা যুদ্ধের মাধ্যমে পরাজিত হতে পারে না, এবং একমত হয়েছিল যে আফগানিস্তানের তালেবানই মূল শক্তি।

সূত্র: বিবিসি বাংলা

সর্বশেষ - খবর

আপনার জন্য নির্বাচিত

এই মাএ শেখ হাসিনা যা বললেন সারা মিডিয়া তোলপাড়

মাঝখানে প্রভাবকে কেন্দ্র করে দুটি প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ: একজন নিহত হয়েছেন।

সুপারিশ প্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানের চেহারা ও দূরত্ব দেখে মন খারাপ হলেও কেন যোগদান করা উচিত !

70/75 মার্কস পেয়েও নিয়োগ পাননি, 60/65 মার্ক পেয়ে নিয়োগ পেয়েছেন কিভাবে ?

গোবিন্দগঞ্জের অবৈধ ভূগর্ভস্থ বালু উত্তোলন ভেঙে, নির্মাণাধীন ব্রিজের ডেক ভেঙে, ২ জন আহত

ইমরান খান: পাকিস্তান তালেবানদের বিরুদ্ধে সামরিক পদক্ষেপ নেবে না

কাশ্মীরে একটি বাড়িতে হামলা, অফিসার এবং তার স্ত্রী নিহত, মেয়ে আহত

তুরস্ক সম্পর্কে তালেবানরা কী বলেছিল?

কোভিড ভ্যাকসিন দিল্লি থেকে প্রেরণ করা হয়নি,ইলিশ ঢাকা থেকে আসেনি

গনতান্ত্রিক দেশে সগৌরবে বলা হয়ে থাকে যে যার যা ইচ্ছে